২৮০ রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করে পাঠানো হলো ভাসানচরে

0

বঙ্গোপসাগরে কয়েক সপ্তাহ ধরে ভাসতে থাকা নারী-শিশুসহ ২৮০ রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করা হয়েছে। নৌবাহিনী তাদের বহনকারী নৌকাটি উদ্ধার করে। নারী, শিশুসহ তাদের সবাইকেই ভাসানচরে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনে স্থানান্তর করা হয়েছে৷

শুক্রবার (৮মে) বার্তা সংস্থা রয়টার্স ও আল-জাজিরা এমন খবর দিয়েছে। শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মাহবুব আলম তালুকদারও শুক্রবার সকালে তাদের ভাসানচরে নেয়ার খবর নিশ্চিত করেছেন। তাদের উদ্ধারকারী নৌবাহিনী দলের এক সদস্য বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানিয়েছে সমুদ্রে ভাসমান রোহিঙ্গারা ক্ষুধার্ত ছিল৷ তারা তাদেরকে খাদ্য এবং পানি সরবরাহ করেছেন।

এর আগে বৃহস্পতিবার বাংলাদেশের জলসীমায় রোহিঙ্গাদের বহনকারী জীর্ণ নৌকাটি দেখা যায়। খবরে বলা হয়, উদ্ধারের সময় এসব রোহিঙ্গা প্রচণ্ড ক্ষুধার্ত ছিল। তাদের খাবার ও পানি দেয়া হয়েছে।

এরপর নৌকাটিকে নিয়ে যাওয়া হয় নোয়াখালীর ভাসানচরে। সেখানে গত ৪ মে আরও ২৮ রোহিঙ্গাকে পাঠানো হয়েছিল।

উল্লেখ্য, রোহিঙ্গাদের পুনর্বাসনে নোয়াখালী জেলার হাতিয়া উপজেলার দ্বীপ ভাসানচরে সরকার দুই হাজার ৩১২ কোটি টাকার একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে৷ নৌবাহিনীর তত্ত্বাবধানে এরইমধ্যে সেখানে অনেক স্থাপনা গড়ে উঠেছে৷ নির্মাণ করা হয়েছে এক হাজার ৪৪০টি একতলা ভবন ও ১২০টি চারতলা আশ্রয়কেন্দ্র৷

তবে শুরু থেকেই রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে পাঠানোর ব্যাপারে আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো বিরোধিতা করে আসছিল৷ এক পর্যায়ে রোহিঙ্গাদের সেখানে পাঠানোর পরিকল্পনা বাদ দেয় সরকার৷ তবে সাগর থেকে উদ্ধারকৃতদের এখন সেখানে পাঠানো শুরু করেছে সরকার৷

কয়েক সপ্তাহ আগে পাচারকারীদের সহায়তায় সমুদ্রপথে মালয়েশিয়া পৌছানোর চেষ্টা করে প্রায় ৫০০ রোহিঙ্গা৷ তাদেরকে আশ্রয় দিতে অস্বিকৃতি জানিয়েছিল মালয়েশিয়া ও থাইল্যান্ডের সরকার৷

একটি উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে